মা তানিন সুবহাকে ‘আপু’ ডাকতে বাধ্য হয় মেয়ে তৃষিতা


সিলেটের খবর ডেস্কঃ  গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে অভিনেত্রী তানিন সুবহার বেশ কিছু অন্তরঙ্গ ছবি ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। মুহুর্তেই ভাইরাল হয়ে যায় ছবিগুলো। শুধু অন্তরঙ্গ ছবি নয় ফাঁস হল তার বহু অনৈতিক কর্মকাণ্ডের তালিকা।

এই ছবি ফাঁসের পরই জানা যায়, তানিন সুবহা অবিবাহিত নন। ২০০৮ সালে তিনি স্বামী পনিরকে ডিভোর্স দেন। সে ঘরে তৃষিতা নামের ১২ বছরের এক মেয়ে আছে। তবে তার মেয়ে তাকে মা বলে ডাকে না। নিজেকে অবিবাহিত প্রমাণ করতে নিজের মেয়েকে আপু ডাকতে শেখান তানিন।

বিষয়টি গোপন রেখে এফডিসিতে চলতেন তানিন সুবাহ। নিজের ক্যারিয়ার বাঁচাতে নিজের মেয়েকে আপু ডাকার জন্যও প্রাক্টিস করিয়েছেন বলে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে জানা যায়। সেই অনুযায়ী, আপন মেয়ে মাকে মানুষের সামনে আপু বলে ডাকে। বিষয়টি নিয়ে গত কয়েকদিন থেকেই এফডিসি এলাকায় জোর আলোচনা।

তানিন সুবহা সম্পর্কে পাওয়া যাচ্ছে চমকপ্রদ তথ্য। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে নিজের মেয়েকে নিয়ে আসেন তানিন সুবহা। এমনকি মেয়ের জন্মদিনেও সবাইকে নিয়ে কেক কাটেন। তবে মেয়ে পরিচয় নয়, বোন পরিচয় দিয়েই, এসব করছেন তিনি।

সম্প্রতি কয়েকজন যুবকের সঙ্গে তানিন সুবহার ছবি প্রকাশ পায়। এদেরই একজন রাব্বি। জানা গেছে, তানিন সুবহার প্রেমিক ছিলেন রাব্বি। রাব্বি একটাই কথা বললেন, ‘এসব এখন অতীত।’

তানিন সুবহার হাতে কোনো ছবি না থকলেও দামি গাড়ি হাকিয়ে বেড়ান এবং নিজের মা, বাবা, ভাই, বোনসহ পুরো সংসারটি তিনিই পরিচালনা করেন। একটি পার্লার রয়েছে খিলগাঁও এলাকায়। সেই পার্লার ব্যবসার আড়ালেও শোনা যায় নানা গুঞ্জন।

প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালে নিজ বিউটি পার্লারের কর্মী টুনিকে অপহরণ এবং অনৈতিক সম্পর্কের জড়ানোর অভিযোগে গ্রেপ্তার হয়েছিলেন তানিন সুবহা। অপহরণ ছাড়াও তার বিরুদ্ধে নানা অনৈতিক কর্মকাণ্ডের অভিযোগ রয়েছে। মামলাটি এখনও বিচারাধীন। গত ২৮ অক্টোবর টুনি নামের এক বিউটিশিয়ানের পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে তানিনকে গ্রেপ্তার করে রাজধানীর সবুজবাগ থানা পুলিশ।

‘অবাস্তব ভালোবাসা’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে বড়পর্দায় অভিষেক ঘটে তানিন সুবহার। ছোটপর্দায় অভিষেক হয় আজাদ কালামের পরিচালনায় ‘যমজ’ নাটকে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে। তার পর থেকেই দ্বিতীয় সারির নায়িকা হিসেবে কাজ করছেন। তিনি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সদস্য।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*