সিলেটের উন্নয়নে অংশীদার হতে চাই : টাওয়ার হ্যামলেটস স্পিকার

বৃটেনের টাওয়ার হ্যামলেটস সিটির স্পিকার ও কাউন্সিলর আয়াছ আলী বলেছেন, মাতৃভূমি বাংলাদেশ তথা বিশেষ করে সিলেটের সঙ্গে আমাদের নাড়ির সম্পর্ক বিদ্যমান। আমরা সিলেটসহ দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় অংশিদার হয়ে কাজ করতে চাই।
তিনি বুধবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) সিলেট প্রেসক্লাব আয়োজিত মতবিনিময় সভায় সংবর্ধিত অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। ক্লাব সভাপতি ইকরামুল কবিরের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল মাহমুদের সঞ্চালনায় মতবিনিময় সভায় আয়াছ আলী আরও বলেন, একসময় সিলেটের অসংখ্য মানুষ বৃটেন সফরে যেতেন। ব্রিটিশ ভিসা সেন্টার বাংলাদেশ থেকে সরিয়ে নেওয়ায় এখন সিলেটীরা ভিসা পেতে নানা সমস্যার সম্মুখিন হয়ে থাকেন। এ বিষয়ে ব্রিটিশ হাই কমিশন, টাওয়ার হেমলেটস এর মেয়রের কাছে বিষয়টি জোরালোভাবে উপস্থাপন করবো।
তিনি বলেন, প্রবাসীরা বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহী। বাংলাদেশ সরকারও প্রবাসীদের ব্যাপারে বেশ আন্তরিক। বাংলাদেশ যে উন্নয়নের মহাসড়কে অবস্থান করছে, সুন্দর পরিবেশ পেলে প্রবাসীরা এই দেশে বিনিয়োগে আরো আগ্রহী হয়ে উঠবে।
সভাপতির বক্তব্যে সিলেট প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকরামুল কবির বলেন, প্রবাসীরা বাংলাদেশের রেমিটেন্স যোদ্ধা। বিশেষ করে বৃটেন প্রবাসীরা বাংলাদেশের এম্বাসেডরের ভূমিকায় অবতীর্ণ। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধ থেকে শুরু করে বাংলাদেশের সংকটময় মুহূর্ত ও যেকোন উন্নয়ন অগ্রগতিতে বৃটেন প্রবাসীদের ভূমিকা অনন্য।
মতবিনিময় সভায় বক্তারা লন্ডন প্রবাসী অভিভাবকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে আপনাদের নাড়ির সম্পর্ক। কিন্তু, নতুন প্রজন্ম বাংলাদেশে ভ্রমণে আসতে আগ্রহী নয়। এ অবস্থার উত্তোরণ জরুরি।
সভায় বক্তব্য রাখেন লন্ডনে মাসিক দর্পণের প্রধান সম্পাদক এলাইছ মিয়া মতিন, সম্পাদক রহমত আলী, স্পীকারের কনসর্ট আবুল হোসেন, সিলেট প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি এনামুল হক জুবের, সহ-সভাপতি এমএ হান্নান, সাবেক সহ-সভাপতি, দৈনিক জালালাবাদের নির্বাহী সম্পাদক আব্দুল কাদের তাপাদার, বদরুদ্দোজা বদর, সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি আমজাদ হোসাইন, সিদ্দিকুর রহমান, দৈনিক জালালাবাদের প্রধান প্রতিবেদক আহবাব মোস্তফা খান, সিলেট প্রেসক্লাবের কার্যনির্বাহী সদস্য শুয়াইবুল ইসলাম, সিনিয়র সাংবাদিক কাউসার চৌধুরী, এম এ মতিন, আবু তালেব মুদার, সিদ্দিকুর রহমান, আমিরুল ইসলাম এহিয়া প্রমুখ। কোরআন তেলাওয়াত করেন সিলেট প্রেসক্লাবের কার্যনির্বাহী সদস্য মো. ফয়ছল আলম।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*