সিলেট বিভাগে ১১ উপজেলায় ভোট গ্রহণ কাল, সেনাবাহিনীর টহল শুরু

by News Room
চতুর্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ৪র্থ ধাপে সিলেট বিভাগে ১১ উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে রোববার ( ২৩ মার্চ)। ভোট উপলক্ষে শুক্রবার থেকে ৫ দিনের জন্য নির্বাচনী এলাকায় স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে সেনা সদস্যরা টহল শুরু করেছে। সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের লক্ষ্যে প্রতিটি উপজেলায় এক প্লাটুন সেনা টহল দেবে। ভোটের দুই দিন আগ থেকে, ভোটের দিন এবং ভোটের পরের দুই দিন মোট পাঁচ দিন সেনা টহল চলবে। এ সময় সেনা বাহিনীর সঙ্গে র‌্যাব, পুলিশ ও আনসার সদস্যরাও দায়িত্ব পালন করবেন।

সেনা টহল প্রসঙ্গে সিলেট বিভাগীয় নির্বাচন কর্মকর্তা এস এম এজহারুল হক  বলেন, নিয়মিত বাহিনীর সঙ্গে স্ট্রাকিং ফোর্স হিসেবে মোট ৫ দিন উপজেলা পর্যায়ে সেনা টহল থাকবে। ভোট কেন্দ্রগুলোতে দায়িত্ব পালন করবেন র‌্যাব, পুলিশ ও আনসার সদস্যরা।

এদিকে, সিলেটের ১১টি উপজেলাই গতকাল শুক্রবার মধ্যরাতে শেষ হয়েছে প্রার্থীদের প্রকাশ্যে প্রচারনা। এসব উপজেলায় চেয়ারম্যান, ভাইস- চেয়ারম্যান পদে পৌণে ২শ’ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আগামীকাল রোববার এসব উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ১১ উপজেলা ও ৮ পৌরসভার ৯শ’ ২৭ ওয়ার্ড মিলিয়ে মোট ভোটার সংখ্যা ১৬ লাখ ৬২ হাজার ৪১ জন ভোটার ৭৮১ ভোট কেন্দ্রে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

নির্বাচন অফিস সূত্র জানিয়েছে, চতুর্থ দফায় সিলেট জেলার সিলেট সদর ও কানাইঘাট, সুনামগঞ্জের শাল্লা ও ধর্মপাশা, মৌলভীবাজারের মৌলভীবাজার সদর, শ্রীমঙ্গল ও কমলগঞ্জ, হবিগঞ্জের হবিগঞ্জ সদর, নবীগঞ্জ, লাখাই ও আজমিরীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

এসব উপজেলায় সেনাবাহিনীর পাশাপাশি র‌্যাব, পুলিশ, এপিবিএন, বিজিবি, ব্যাটালিয়ান আনসার ও আনসার মোতায়েন রয়েছে।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার রহমত উল্লাহ সিলেটভিউ টেয়েন্টিফোরকে জানান, সিলেট সদর উপজেলায় নির্বাচন সুষ্ঠভাবে সম্পন্ন করতে এক হাজার অতিরিক্ত পুলিশ সিলেটে অবস্থান করছেন। আশা করছি ভালোয় ভালোয় নির্বাচন সম্পন্ন হবে।

অপরদিকে, ডিআইজি কার্যালয় সূত্র জানিয়েছে, এসএমপি সদর ছাড়া ১০ উপজেলায় ১২ হাজার ৫০৪ জন পুলিশ ও আনসার মোতায়েন করা হবে। তারা আজ সন্ধ্যায় বিভিন্ন ভোট কেন্দ্রে পৌঁছে যাবেন। এর মধ্যে পুলিশ থাকবেন ২ হাজার ৮শ’ ৩৯ জন। র‌্যাব ২শ’ ৩৮ জন, এপিবিএন ২শ’ ৫০, বিজিবি ৫শ’ ৯৫, ব্যাটালিয়ন আনসার ১শ’ ১০ জন ও আনসার ৮ হাজার ৪শ’ ৭২ জন।

এছাড়া,সিলেট জেলার কানাইঘাটে ৫শ’ ৬৬ জন পুলিশ, ১৮ জন র‌্যাব, ২০ জন এপিবিএন, ব্যাটালিয়ন আনসার ২০ জন ও ৮শ’ ৪ জন আনসার দায়িত্ব পালন করবেন।

সুনামগঞ্জের দুই উপজেলা শাল্লা ও ধর্মপাশায় ৫শ’ ৩৩ জন পুলিশ, ৬৪ জন র‌্যাব, ৬০ জন এপিবিএন, বিজিবি-১শ’ ৪০ জন, ব্যাটালিয়ন আনসার ২০ জন ও এক হাজার ২শ’ জন আনসার দায়িত্ব পালন করবেন।

মৌলভীবাজারের ৩ উপজেলা সদর, শ্রীমঙ্গল ও কমলগঞ্জে আইনশৃংখলা নিয়ন্ত্রণে নিয়োজিত থাকবেন পুলিশ ৮শ’ ৩ জন, র‌্যাব ৬০ জন, এপিবিএন ৭০, বিজিবি ২শ’১৫, ব্যাটালিয়ন আনসার ৩০ জন ও ৩ হাজার ২৪ জন আনসার।

হবিগঞ্জের সদর, নবীগঞ্জ, লাখাই ও আজমিরীগঞ্জ এই ৪ উপজেলায় সর্বমোট ৪ হাজার ৮শ’ ৫৭ জন সদস্য আইনশৃংখলা রক্ষায় মোতায়েন থাকবে। এরমধ্যে পুলিশ ৯শ’ ৩৭ জন, র‌্যাব ৯৬ জন, এপিবিএন ১শ’, বিজিবি ২শ’ ৪০, ব্যাটালিয়ন আনসার ৪০ ও ৩ হাজার ৪শ’ ৪৪জন আনসার নিয়োজিত থাকবে। –

You may also like

Leave a Comment


cheap mlb jerseyscheap nhl jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseys