বন্ধুত্ব

by News Room

রিমা বেগম পপি;–পৃথিবীতে মানুষের সাথে মানুষের কত রকম সম্পক আছে। সম্পকের কত রকম পরিচয় থাকে। তেমনি একটি সম্পকের নাম বন্ধুত্ব। বন্ধু্ত্ব কথাটির মাঝে একট মধুরতা আছে। বন্ধুত্বের মাঝে থাকে বিশ্বাস। অনেক কথা আছে যা সবাইকে বলা যায় না। তবে বন্ধুর সাথে কথা বলা যায়। ঠিক আমাদের মত বন্ধু। আমাদের মত বন্ধু খুজে পাওয়া যায় না।
এখনকার বন্ধু্ত্ব বেশি দিন টিকেনা। খুব সহজেই বন্ধুদের মাঝে ঝগড়া বিবাদ লেগে যায়। আমরা ছিলাম এক জুটিতে পাঁচ বন্ধু। দুজন ছেলে ও তিনজন মেয়ে।নয়ন, সৌরভ, প্রভা, আলো, ও আমি অধরা।
আমরা যখন নাইনে পড়তাম তখন নয়ন ওসৌরভর সাথে আমাদের পরিচয়। ভাসিটিতে পড়ছি এখন আমরা সবাই। এখনো আমাদের সম্পক টিকে আছে। মাঝে মাঝে অনেক রাগ অভিমান ও হয়েছে। তবে সবকিছু সামলে নিয়ে এখন আমরা বন্ধুই আছি।
আমাদের এই বন্ধুত্বের মাঝে নয়ন ওআলোর মাঝে একটা সম্পক সৃষ্টি হয়েছিল। সে সম্পেক কথা আমরা পরে জানতে পেরেছিলাম। ওরা দুজন দুজনকে ভালবাসতো। ভাসিটিতে পা রাখতেই প্রথম সৌরভ কিছুটা বুজতে পেরেছিল ওদের কথা।যখন আলোর পরিবার থেকে আমরা জানতে পারলাম যে ওর বিয়ে ঠিক হয়েছে। তাই সে পড়ালেখা বন্ধ করে দিয়েছে। ঠিক তখনই নয়নের অবস্থা দেখে আমি ও প্রভা বুজতে পারলাম যে ঘটনা ঠিকই আছে।
এতে আলোর মত নেই। তার ইচ্ছের বাইরে তাকে বিয়ে দিচ্ছেন। এদিকে নয়নে করোণ অবস্থা। নয়ন প্রায় মরতে বসেছে। আমরা সবাই মিলে নয়নকে দেখতে গেলাম। নয়ন তখন আমাকে বলল,অধরা তুই আমাকে একটা কাজ করে দিবি। আমি বললাম কি কাজ,আমাকে বল নয়ন। নয়ন তখন বলল আলোর যার সাথে বিয়ে ঠিক হয়েছে,তার ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বারটা আমাকে দিবি যেভাবেই হোক। আমি নয়নকে জিজ্ঞ্জাসা করলাম কেন এসব চাইছস।সে বলল যে আমি তাকে আমাদের দুজনের সম্পেকর কথা বলব। আমাদের ছবি দেখাব। তাহলে হয়তো সে আলোকে বিয়ে করবেনা। আর তাতে সে রাজী না হয় তাহলে তাকে মেরে ফেলার হুমকি দেব। ভয়ে হয়তো সে আলোর জীবন থেকে সরে যাবে।
আর আমি আলোকে ফিরে পাব। নয়নের কথা শোনার পর সৌরভ,প্রভা,ও আমি নয়নকে বললাম যে, নয়ন আমরা সবাই তোর বন্ধু, আমরা চাই যে সবাই যেন ভাল থাকি। আমরা চাই না আমাদের জন্য আলোর কোন ক্ষতি হোক। দেখ নয়ন, তোর কথা শোনে আমি আলোর বরের ঠিকানা তোকে দেই তাহলে হয়তো আলোর বিয়েটা ভেঙ্গে যাবে। আলো একটা মেয়ে,আর একজন মেয়ের যদি একবার বিয়ে ভেঙ্গে যায় তাহলে তাদের জীবনটা ধ্বংস হয়ে যায়। তুই কি চাস আলো এই সমাজে নষ্ট হয়ে যাক।শোন নয়ন ভালবেসে যে তাকে পেতেই হবে তার কোন কথা নেই। ত্যাগের মাঝে অনেক সুখ আছে।
তুই সবকিছু ভুলে নতুন করে জীবন শুরো কর দেখবে সব ঠিক হয়ে যাবে। আমরা সবাই তোর সঙ্গে আছি। নয়ন নিজেকে সামলে নিতে বেশ কয়কদিন লাগিয়ে দিল। তারপর সব ঠিক হয়ে গেল। আলোর বিয়ে ঠিকমত হলো।
আমরা সব বন্ধুরা উপস্থিত ছিলাম। বিয়ের পনের দিন পর আলোর স্বামী আমেরিকায় চলে গেল।আর আলো আবার পড়ালেখা শুরূ করল।
সবাই আবার আগের মত হয়ে গেলা। যদি আমরা তা মনে রাখতাম তাহলে হয়তো অনেক কিছুর ধ্বংস হত। অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হত। বন্ধুত্বের মাঝে ফাটল ধরত।কিন্তূ আমাদের মাঝে তা হয়নি। সবকিছু সামলে নিয়ে আমরা আমাদের বন্ধু্ত্বকে আজো ধরে রেখেছি। এবং রাখবো আজীবন।এটাই আমাদের বন্ধুত্বের পরিচয়।

You may also like

Leave a Comment


cheap mlb jerseyscheap nhl jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseys