কয়েস লোদী নিজেই জানেন না, তার অপরাধ কী?

by News Room
ডেস্ক রিপোর্ট: কি কারণে অনাস্থার শিকার হলেন, তা নিজেই জানেন না বলে দাবী করেছেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর রেজাউল হাসান কয়েস লোদী।
আজ বিকেলে নগরীর হাউজিং এস্টেটস্থ নিজ কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে কয়েস লোদী বলেছেন, বিধি বর্হিভূতভাবে প্যানেল মেয়র পদ তাকে অপসারণ করতে অনাস্থা প্রস্তাব আনা হয়েছে। মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী ইচ্ছে করলে বিষয়টি মীমাংসা করতে পারতেন। কিন্তু, তা না করে মেয়র নিজেই অতি উৎসাহী হয়ে প্ররোচিত করেছেন কাউন্সিলরদের। এ কারণে, সিটি কর্পোরেশনের ৩৫ কাউন্সিরের মধ্যে ২৬ জন তার বিরুদ্ধে আনা অনাস্থা প্রস্তাবে স্বাক্ষর করেছেন। গত ১০ মে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মাসিক সভায় আনা অনাস্থা প্রস্তাব এখনো পাঠানো হয়নি মন্ত্রণালয়ে। এই প্রস্তাব মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হলে আইনানুগ পদৰে নেবেন বলে জানান কয়েস লোদী।
সংবাদ সম্মেলনে কাউন্সিলর কয়েস লোদী ছাড়াও এলাকার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
জানা গেছে, কাউন্সিলর কয়েস লোদী তার কার্যালয়ের সাইন বোর্ডে প্যানেল মেয়র পদবী ব্যবহার করায় দীর্ঘ দিন ধরে ক্ষুব্ধ আছেন অন্য কাউন্সিলররা।
গত ১০ জুন মঙ্গলবার সিলেট সিটি কর্পোরেশনের নির্ধারিত মাসিক সভায় সিটি কাউন্সিলরবৃন্দ কয়েস লোদীর বিভিন্ন কর্মকান্ডের বর্ণনা দিয়ে প্যানেল মেয়র পদ থেকে তার অপসারণ চান। এ নিয়ে সভায় তীব্র হট্টগোল ও বাক বিতন্ডার সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বের করে দিয়ে কেবল কাউন্সিলরদের নিয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠকে বসেন মেয়র। ঐ বৈঠকে সিটি কর্পোরেশনের ৩৫ জন কাউন্সিলরের মধ্যে ২৬ জন অনাস্থা প্রস্তাবে স্বাক্ষর করেন।

You may also like

Leave a Comment


cheap mlb jerseyscheap nhl jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseys