‘আইনমন্ত্রীর বক্তব্য মনগড়া ও বিভ্রান্তিকর’- সংবাদ সম্মেলনে কামারুজ্জামানের আইনজীবী অ্যাডভোকেট শিশির মুনির

by News Room

সিলেটের খবর ডেস্ক: ফাঁসি কার্যকর এবং রাষ্ট্রপতির ক্ষমা বিষয়ে ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক জাতিকে বিভ্রান্ত করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন মানবতাবিরোধী অপরাধে সর্বোচ্চ সাজাপ্রাপ্ত জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মুহাম্মদ কামারুজ্জামানের আইনজীবী অ্যাডভোকেট শিশির মো. মুনির।

জেলকোডের ৯৯১ বিধি নিয়ে আইনমন্ত্রী ‘অপব্যাখ্যা’ দিয়েছেন বলেও দাবি করেন তিনি।

রোববার দুপুরে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে শিশির মুনির এসব কথা বলেন। সংবাদ সম্মেলনে আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম, সাইফুর রহমান, আসাদ উদ্দিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

কামারুজ্জামানের আইনজীবী বলেন, “আমরা গণমাধ্যমে দেখেছি যে, আইনমন্ত্রী জেলকোডের ৯৯১ উল্লেখ করে কামারুজ্জামানের রায় শোনার দিন থেকে সাত দিন সময়সীমার মধ্যে রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা চাওয়ার সুযোগ আছে মর্মে বলেছেন। মন্ত্রীর এ বক্তব্য অনুযায়ী আজ রোববারই সেই সময়সীমা শেষ হচ্ছে।”

আসামিপক্ষের মতে, আইনমন্ত্রী একজন বিজ্ঞ আইনজীবী হয়েও জেলকোডের ৯৯১ বিধির অপব্যাখ্যা করেছেন। বস্তুত রায় শোনার দিন থেকে সাত দিনের মধ্যে রাষ্ট্রপতির নিকট ক্ষমা চাওয়ার বিধান এ ধারায় উল্লেখ নেই। মৃত্যু পরোয়ানা গ্রহণ করার পর থেকে নতুন জেলকোড অনুযায়ী ১৫ দিন এবং পুরোনো জেলকোড অনুসারে সাত দিনের বিধান রয়েছে।

শিশির মনির বলেন, “আপিল বিভাগ থেকে পূর্ণাঙ্গ রায় এখনো প্রকাশ হয়নি। তাই রাষ্ট্রপতির ক্ষমা চাওয়ার ব্যাপারে আইনমন্ত্রী যে সময়সীমার কথা উল্লেখ করেছেন তা বিভ্রান্তিকর ও বেআইনি।”

তিনি বলেন, “আইনমন্ত্রী একজন রাষ্ট্রের দায়িত্বশীল হওয়া সত্ত্বেও তিনি একেক সময় একেক রকম বক্তব্য দিচ্ছেন। এটা রাষ্ট্রের সমন্বয়হীনতার বহিঃপ্রকাশ।”

শিশির মনির বলেন, “পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের হওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে রিভিউ আবেদন করা হবে।”

You may also like

Leave a Comment


cheap mlb jerseyscheap nhl jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseys